Skip to main content

Posts

Showing posts from 2012

টং দোকান (Tong Dokan)

Since I moved here in Canada, I have been missing so many things... My family, my friends, that easy life where my parents used to take care of everything, those endless hangouts and so many other things... I even miss those things which I used to hate back in my country... like load shedding, traffic jams and so on... But I am not gonna write about these things... Today I will babble a bit about 'Tong Dokan'. I know those who don't know Bengali, don't have any idea what I am talking about... But don't worry... I will write a whole post about it now.. I am gonna tell about how this is related to my life, how this is related to every person in Bangladesh..
--------

A busy highway. There is a lot of noise. Loud horns from different type of vehicles. Apart from cars and buses, a lot of Rickshaws are moving slowly in the road. Some passers-by are anxiously looking left and right to cross the road. There are some banks and departmental stores beside the highway. A lot of …

Heroin: The Deadly Addiction

“People believe that heroin is super, but you lose everything: job, parents, friends, confidence, your home. Lying and stealing become a habit. You no longer respect anyone or anything.”- Pete

"Heroin", one of the deadliest drugs of this world. According to BBC, there are 50 million regular users of heroin, cocaine and synthetic drugs worldwide. In most cases, these 50 million users didn't even realize when they became addicted. They started taking it as fun, as experiment, as accompanying someone who was already addicted.
Let's hear it from the voice of some people who eventually got addicted to heroin. For privacy issue, names or any kind of IDs of those people are not disclosed here.
Story 1:
"Was already mentally addicted to oxy, with the beginning point of some mild physical addiction symptoms. Oxy was expensive though, and my tolerance was going up. One day I was with my friend (who has become the biggest heroin user I know fwiw) and we were getting some …

Siblings

Thousand words are incapable to express how a little girl feels when her elder brother pats his hand over her hair with comforting love ♥

“আমার ডাইরি: (পৃষ্ঠা নং:৩৪-৪১): আমার জীবনের সবচেয়ে বৈচিত্র্যময় কিছুদিন”

গুলিস্তানের কোন এক চিপায় অনেক দিন ধরে আমি পরেছিলাম। আমার আশপাশটা অনেক অন্ধকার ছিল। আমার মত আমার পাশেও অনেকে ছিল। তবে তাদের গায়ে অদ্ভুত সব রঙ আর ডিজাইন। আমার দেহটা কেমন জানি খুবই প্লেইন। সারা শরীরে বালি লেগে এবড়ো-থেবড়ো অবস্থা! কদিন আগেই একলোক আমাকে এখান থেকে তুলে নিয়ে গেল। তার কণ্ঠস্বর শুনে বুঝলাম তিনি এতদিন আমার আশেপাশে থাকতেন। প্রায়ই তার আওয়াজ পেতাম। আজকেই প্রথম তাকে দেখলাম। সাদা স্যান্ডো-গেঞ্জি আর পায়জামা পরনে থাকলেও তার গায়ের রঙ ব্যাপকই কালো। তার পেশীবহুল বাহুতে আমাকে দুম্রে মুচ্রে নিয়ে হাঁটতে থাকলো। কিছুক্ষন হাঁটাহাঁটির পর আমি পানির শব্দ পেলাম। তার কিছুক্ষণ পর আমাকে সে পানির নিচে ডুবিয়ে দিল। আমি ভাবলাম এই বুঝি শেষ...!
কিন্তু না! একটু পর সে আমাকে পানি থেকে টেনে তুলে ফেললো। এরপর আমার গায়ে কিসব জানি মাখলো। ঘ্রাণটা ভালোয় লাগলো। তারপর আবার পানিতে! এবার সে আমাকে নিয়ে বোধয় খেলা শুরু করলো। একবার পানিতে ডুবায়, আরেক উঠায়! আজব! এসব কি মস্করা নাকি! মেজাজ বিগড়ে জেতে থাকলো আমার। আমার কিছুই করার নেই। চুপচাপ সহ্য করলাম। অবশেষে সে থামল!
হাঁফ ছেড়ে বাঁচলাম! বেটার উপর হেব্বি মেজাজ খারাপ! কিছু কইতেও পার…

Here comes the rain again...

এতো কেবল শুরু!

আজকের রাতটা হয়ত অন্যরকম হতে পারতো... হয়ত আমি এত তাড়াতাড়ি ঘরে ফিরতাম না... চারদিকে হয়ত এত নিস্তব্দতা থাকতোনা... হয়ত! বিজয়ের উল্লাস সবার মত আমিও খুব মিস করছি... একদম ধরেই নিয়েছিলাম আজ বিজয়ের আনন্দে সারারাত কেটে যাবে... একদম পুরাপুরি prepared যেটাকে বলে তাই ছিলাম...


কিন্তু শেষ মুহূর্তে এসে ভিতর থেকে সব কিছু কেমন জানি ঠাণ্ডা হয়ে আসলো... Match এর সময় heart beat যেমন অতিরিক্ত বেড়ে গিয়েছিলো... ঠিক তেমন করেই খেলা শেষ হওয়ার পর তা অতিরিক্ত কমে গেল...

আমার একটা problem আছে... যখন বাংলাদেশ খেলে... যখন খেলা তুমুল উত্তেজনাপূর্ণ থাকে... ওই সময়ে আমার মনে হয় আমি খেলা দেখলেই কোন অঘটন ঘটবে... এমন বোধহয় অনেকেরই মনে হয়... শেষের দিকে আমি ভয়ে খেলা দেখতে পারছিলাম না... Heart beat এর অবস্থা দেখে মনে হচ্ছিল ওইটা বোধহয় ভিতর থেকে বের হয়েই আসবে... শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে গিয়ে জ্বর চলে এসেছিল... ইউসুফ ভাইয়ের হোটেলের সামনে প্রায় অর্ধশত মানুষ জড় হয়ে খেলা দেখছিল... আমি হোটেলের ভিতর বসে ছিলাম... বসে বসে পা নাচাচ্ছিলাম... খুব tensed থাকলে এমনটা করি...


উমার গুলের over টা শেষ হওয়ার পর যখন শুনলাম ৬ বলে ৯ রান, হাতে ৩ উইকেট...…

Dust to Hand... Hand to Mouth

Integrity

We used to find love in flowers...

IUTian হওয়ার কষ্ট!

সবাই IUTian হওয়ার ভাল দিক নিয়ে লিখে... আজকে আমি IUTian হওয়ার খারাপ দিক নিয়ে কিছু লিখবো...

আমরা যখন IUT তে ছিলাম তখন পাশ করে যাওয়া senior ভাইরা প্রায় বলতো... "যা মজা করার করেনে... তোরা এই মুহূর্তে life এর best time টা কাটাচ্ছিস..." আমরা অবশ্য উনাদের কথাটা তখন মেনে নিতাম না... আমরা ভাবতাম... দুই দিন পরপর quiz... regular class এর ঝামেলা... এরপর পশ্চাৎদেশ লাল করে দেয়া Mid আর Final.... এসব life এ থাকলে ওই Life আবার best হয় ক্যামনে?? আরো ভাবতাম, কবে পাশ করে বের হব... চাকরিবাকরি করে independent হব... হাবিজাবি ইত্যাদি বেহুদা চিন্তাভাবনা...
IUT তে ৪টা বছর কোনদিক দিয়ে কেটে গেল বুঝতেই পারলাম না... পাশ করার সাথে সাথে convocation পেয়ে পা মাটি থেকে পুরা ১০ হাত উপরে উঠে গেল... মনে হল... এই তো আমি আজ স্বাধীন... আমি আজ কত বড় হয়ে গেছি... তখনও বুঝা বাকি একজন IUTian হওয়া মানে life টা পুরাই loss... পুরাই বরবাদ!

যাইহোক... পাশ করা সদ্য IUTian... ঘরে ফিরলাম... দেখলাম আমাকে ঘিরে অনেক আয়োজন... ছেলে Engineer!!! চাট্টিখানি কথা নয়... !! আয়োজনে আয়োজনে কেটে গেল আরও কিছুটা সময়... তখনও বুঝা বাকি কপালে কি দু…